সরকারি হাসপাতালের চিকিৎসকরা বেসরকারি নার্সিংহোম বা অন্যান্য স্বাস্থ্য প্রতিষ্ঠানে কত সময় দিচ্ছেন তার উপর নজর রাখবে স্বাস্থ্য দফতর ৷ এই সংক্রান্ত রিপোর্ট নিয়মিত পাঠাতে হবে স্বাস্থ্যভবনে। চিকিৎসকের নাম, কোন হাসপাতালে ওই চিকিৎসক কাজ করছেন, ওই চিকিৎসকের পদমর্যাদা ও বেসরকারি হাসপাতালে তিনি কতক্ষণ সময় দিচ্ছেন, সেই তথ্য বিস্তারিত জানাতে বলা হয়েছে। আর এই নির্দেশ পালন না হলে, ক্লিনিক্যাল এস্টাব্লিশমেন্ট অ্যাক্ট ২০১৭ মেনে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। এই মর্মে নতুন নির্দেশিকা জারি করেছে রাজ্যের স্বাস্থ্য দফতর। দফতরের তরফে জানানো হয়েছে, রাজ্যের সরকারি হাসপাতালগুলির পরিকাঠামো আগের থেকে অনেক ভাল হয়েছে। কিন্তু সরকারি চিকিৎসকদের একাংশ হাসপাতালে অস্ত্রোপচার না করে রোগীদের নার্সিংহোমগুলিতে পাঠাচ্ছেন। এরপর সেখানে সেই রোগীর অস্ত্রোপচার করা হচ্ছে। তাই এইসব বিষয়গুলির উপর নজর দিতে এই নির্দেশিকা জারি করা হল বলে স্বাস্থ্য দফতর সূত্রে খবর। স্বাস্থ্য দফতরের এই পদক্ষেপ নিশ্চিতভাবেই ভরসা জোগাবে রাজ্যের সাধারণ মানুষকে। কারণ তৃণমূল কংগ্রেস ক্ষমতায় আসার পর মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের আন্তরিক উদ্যোগে রাজ্য স্বাস্থ্যব্যবস্থা এক বিশেষ মাত্রা পেয়েছে। সরকারি হাসপাতালের উপর মানুষের বিশ্বাস এবং আস্থা বেড়েছে। অত্যাধুনিক পরিকাঠামো রাজ্যের সরকারি হাসপাতালগুলিকে এক বিশেষ উচ্চতায় নিয়ে গিয়েছে। সাধারণ মানুষ যাতে সর্বোত্তম চিকিৎসা পান তারজন্য বিশেষ সচেতন রাজ্যের স্বাস্থ্য দফতর। এই অবস্থায় কিছু সরকারি ডাক্তারের বেসরকারি হাসপাতালে অনৈতিকভাবে সময় দেওয়া মোটেই ভালভাবে নিচ্ছেন না মানুষ। তাই রাজ্যের এই কড়া পদক্ষেপ।