মঙ্গলবার থেকে সামশেরগঞ্জ থানার বিস্তীর্ণ অঞ্চল জুড়ে শুরু হয় গঙ্গার ভাঙন। সেই ভাঙন ভয়াবহ রূপ নেয় চাচন্ড গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকার শিবপুর গ্রামে। মঙ্গলবার সকালে সামশেরগঞ্জের প্রতাপগঞ্জ এলাকার প্রায় ৫০০ মিটার অংশ জুড়ে গঙ্গার ভয়াবহ ভাঙন প্রত্যক্ষ করে এলাকাবাসী। ভাঙনে ৫টি বাড়ি গঙ্গাগর্ভে তলিয়ে যায়। আরও ১২টি বাড়ির অবস্থা বিপজ্জনক। ইতিমধ্যেই এলাকা থেকে ৩৫টি পরিবারকে নিরাপদ স্থানে সরানো হয়েছে। বুধবার সকালে প্রতাপগঞ্জ থেকে প্রায় ৩ কিমি দূরে চাচন্ড গ্রাম পঞ্চায়েতের শিবপুরে নতুন করে ভাঙন শুরু হতেই আতঙ্ক ছড়ায় এলাকাবাসীর মধ্যে। প্রায় দেড় বছর আগে শিবপুর, নতুন শিবপুর, ধানঘরা প্রভৃতি এলাকায় গঙ্গার ভয়াবহ ভাঙনে প্রায় ৭০০ পরিবার গৃহহীন হয়। রাজ্য সেচ দফতর ২৭ কোটি টাকা খরচ করে ভাঙন প্রতিরোধে কিছু কাজ করে। যে সব এলাকায় ভাঙন প্রতিরোধে কাজ হয়েছিল বুধবার সকালে সেই এলাকায় নতুন করে ভাঙন দেখা দেয়। শিবপুর গ্রামের তিনটি বাড়ি নদীগর্ভে তলিয়ে গিয়েছে। আরও ২৫টি বাড়ি বিপজ্জনক অবস্থার মধ্যে রয়েছে। সেগুলি যে কোনও সময় তলিয়ে যেতে পারে। পঞ্চায়েত প্রধান সায়রা বিবি বলেন, ‘‘ইতিমধ্যে কিছু ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারকে আমরা জালাদিপুর বেসিক স্কুলে নিয়ে যাওয়ার ব্যবস্থা করেছি।

আরও পড়ুন: চিকেনের জায়গায় হাড় দিয়ে ক্ষমা প্রার্থনা! ডেলিভারি বয়ের কাণ্ডে তাজ্জব নেটদুনিয়া